• মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ১১:৪৯ পূর্বাহ্ন

ভোলায় চুপিসারে শীতের আগমন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক / ২০৫ Time View
Update : মঙ্গলবার, ৯ নভেম্বর, ২০২১
Exif_JPEG_420

মোঃ ইব্রাহীম সোহেল।।
বাংলাদেশের প্রকৃতির এক অন্যতম ঋতু শীত। শীতের আগমনী বার্তা যেন প্রকৃতিতে এক ভিন্নরকম চাঞ্চল্য আনে। শীত ধীরে ধীরে এগিয়ে আসছে। ফলে মাঝ রাত থেকেই শীত অনুভূত হচ্ছে। সন্ধ্যা রাতে হালকা গরম অনুভব হলেও মাঝ রাতের দিকে কাঁথামুড়ি দিতে হচ্ছে। ভোর থেকেই চারপাশে কুয়াশা দেখা গেলে সূর্য উঠার পরপর কাটতে শুরু করে।
গাছের পাতায়, ঘাসের ডগায় ও সোনালি ধানের শীষে জমেছে শিশির কনা। পাশাপাশি বাতাসে রয়েছে হিমেল অনুভূতিও। প্রচলিত রীতি অনুযায়ী কার্তিক মাসে শীতের জন্ম হয়ে থাকে। তাই কুয়াশার সঙ্গে জানান দিচ্ছে শীতের আগমনী বার্তার।
ভোলায় চুপিসারে শীতের আগমন
গত কয়েকদিন ধরেই শুরু হচ্ছে শীতের আমেজে। তবে দিনের বেলায় কিছুটা গরম অনুভূত হলেও সন্ধ্যা নামার পর একটু একটু করে কুয়াশা জড়িয়ে ধরছে প্রকৃতিকে। সকালেও দেখা গেছে সেটি। এতে হালকা শীতের অনুভূতি জাগিয়ে দিয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, দিনে কিছুটা গরমভাব থাকে। আবার মাঝরাতের দিকে বেশ ঠাণ্ডা পড়ে। ভোর থেকে আবার কুয়াশাও দেখা যাচ্ছে। এমন আবহাওয়ায় ঠাণ্ডা-কাঁশির প্রকোপ বাড়তে পারে।

সকালে হাঁটতে বের হওয়া মো. মোতাছিম বিল্লাহ বলেন, গত কয়েক দিন ধরে রাতের বেলা শীত অনুভূত হচ্ছে। থাকছে কুয়াশাও। তবে সূর্য উঠার পর কুয়াশা আস্তে আস্তে কমে যায়।

সদর উপজেলার ধনিয়া ইউনিয়নের মসজিদের ইমাম আবু সুফিয়ান বলেন, গত কয়েকদিন ধরে ভোর বেলায় কুয়াশা দেখা দেওয়ায় শীতশীত অনুভূত হচ্ছে। তাছাড়া দিনে গরম লাগলে ও মাঝরাতে শীত করছে। সকাল বেলা হাঁটতে খুব ভাল লাগলেও কুয়াশা স্মরণ করিয়ে দেয় যে শীত এসে গেছে।

রিকশাচালক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন বলেন, গত কয়েকদিন ধরে সন্ধ্যার পর রাস্তায় কুয়াশা দেখা যায়। রাত যত বাড়ে কুয়াশা তত বেশি দেখা যায়। কুয়াশার কারণে ঠাণ্ডা লাগায় রাত ১১টার পর আর বাইরে থাকি না। বাড়িতে চলে আসি।
মোঃ রতন মাঝি বলেন
অতিথি পাখির কলতান শীতের আমেজ কে আরো বাড়িয়ে তোলে দীর্ঘদিন পর কুয়াশামাখা ভোর দেখে বেশ আনন্দিত লাগে ।
এদিকে শীতের আগমনী বার্তায় স্থানীয় হাটবাজারগুলোতে শোভা পাচ্ছে নানা রকমের শীতের গরম পোশাক।
ফুটপাতে তোলা হচ্ছে পুরানা শীতের কাপড় বিক্রেতারাদের দোকান এবং বিভিন্ন মার্কেটে শীতের পোশাক তুলেছেন দোকানিরা ।

ব্যবসায়ী ফারুক হোসেন বলেন, শীতের আগমনী বার্তায় গত বছরের বিভিন্ন শীতের পোশাক দোকানে উঠিয়েছি। শীতের পোশাক বিক্রি শুরু না হলেও বাচ্চাদের পোশাক কিছু বিক্রি হচ্ছে। আশা করছি আগামী সপ্তাহের মধ্যে বেচাকেনা শুরু হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category