• সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৭:৫২ পূর্বাহ্ন

ভোটার জরিপে এগিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী ইলিয়াছ মোল্লা

Reporter Name / ৪৭৮ Time View
Update : রবিবার, ২২ মে, ২০২২

পটুয়াখালী সদর উপজেলার আসন্ন লাউকাঠি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে (স্বতন্ত্র ) প্রার্থী জয়ের পথে এগিয়ে রয়েছে জনপ্রিয় সাবেক চেয়ারম্যান ইলিয়াছ মোল্লা। যোগ্যতা, দক্ষতা আর সততায় এই চেয়ারম্যান প্রার্থী মানুষের আস্থা অর্জণ করে নিয়েছেন। নিজেকে গড়ে তুলেছেন অপ্রতিদ্বনদ্বী হিসাবে। তিনি ১৯৯৭ সালে ০১ নং লাউকাঠি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাাচিত হন এবং ২০০২ ইং সাল পর্যন্ত সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করেন। পরে ব্যাবসায়ী কাজে নিজেকে জড়িয়ে নেয়। এবারের নির্বাচনে তিনি বিজয়ী হবেন বলে জানাগেছে ভোটার জরিপে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, লাউকাঠি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ইলিয়াছ মোল্লা একজন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। বাবা মরহুম আব্দুল মালেক মোল্লা ছিলেন একজন আর্দশবান শিক্ষক। লাউকাঠী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাবার আদর্শকে ধারণ করে মানুষের সেবায় নিয়োজিত ছিলেন তিনি। ছাত্রজীবন থেকেই গরীব ও অসহায় মানুষের সেবা করেন। প্রথমে ১৯৯৭ সালে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীকে বিপুল ভোটে হারিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। আগামী ১৫ জুনের নির্বাচনে ২য় বারের মত জয়ের পথে এগিয়ে রয়েছেন তিনি।

এক মেয়াদের দায়িত্ব পালন কালে কোন রকম অনিয়ম দুর্নীতি তাকে স্পর্শ করতে পারিনি। সকল অনিয়মের উর্ধ্বে থেকে কাজ করছেন সাধারন মানুষের জন্য। তিনি স্বচ্ছতার সাথে বয়স্ব, বিধবা, প্রতিবন্ধী, বিজিএফ, বিজিডিসহ সকল ধরনের ভাতা ও সরকারের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা প্রকৃত অসহায় মানুষের মাঝে সুষম বন্টণ করে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছেন এই চেয়ারম্যান ইলিয়াছ মোল্লা।
স্থানীয়দের সাথে কথা হলে তারা জানান,‘ ইলিয়াছ মোল্লা একজন ভালো মানুষ। তিনি চেয়ারম্যান থাকাকালিন সময় এলাকাবাসীর বিপক উন্নয়ন মূলক কাজ করেন। তিনি সঠিকভাবে সরকারের সকল সুবিধাসমূহ বিতরণ করতেন। কখনো অনিয়ম দুর্নীতি করেননি।

লাউকাঠি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী মো. ইলিয়াছ মোল্লা বলেন,‘ ১৯৯৭ সালে চেয়ারম্যান থাকা কালিন সময় মানুষের খেদমত করেছি। সরকারের বিভিন্ন ফান্ডের অর্থ ছাড়াও নিজের টাকা দিয়েও মানুষের পাশে ছিলাম। সাধারন মানুষ আমার উপর যে দায়িত্ব দিয়েছিল তা সঠিক ভাবে স্বচ্ছতার সাথে পালন করেছি। পরে আর নির্বাচন করিনি। এবার এলাকাবাসী আমাকে নির্বাচন করার জন্য জোর দাবী জানান। আশা করি সাধারন ভোটারেরা ২য় বার তাদের পবিত্র ভোট দিয়ে আমাকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করবেন। আমি মানুষের সেবা করতে চাই। সুখে-দুঃখে তাদের পাশে থাকবো এটা আমার অঙ্গিকার।

উল্লেখ্য আগামী ১৫ জুন সারাদেশের মোট১৩৫ টি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি),ছয়টি পৌরসভা ও একটি উপজেলা পরিষদে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। একই সঙ্গে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category